টেট পাশ করে থাকলেই চাকরি দেওয়া হবে! পর্ষদ সভাপতির প্রতিশ্রুতির সঙ্গে আছে সতর্কবার্তা

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে নতুন পর্ষদ সভাপতি গৌতম পালের বড় প্রতিশ্রুতি। মঙ্গলবার প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতারের দিন‌ই সাংবাদিক বৈঠক করে বর্তমানে পর্ষদ সভাপতি এক বড় কথা বলেন। যার ফলে নতুন করে আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছে ২০১৪ ২০১৭ এর টেট পাশ চাকরিপ্রার্থীরা।

2014 and 2017 Tet pass all will have jobs said Goutam Pal

কী বলেছেন প্রাথমিক পর্ষদ সভাপতি?

২০১৪ সালের টেট পাশ প্রার্থীদের দু’ধাপে নিয়োগ হয়েছে। সর্বশেষ ২০২০ সালে তাদের নিয়োগ হয়। প্রায় ৬০ হাজার জন সরকারি ও সরকার পোষিত প্রাথমিক স্কুলে সহকারী শিক্ষকের চাকরি পেয়েছেন। এদের নিয়োগের ক্ষেত্রে‌ই ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। সেই নিয়ে আজ‌ও রাজপথে আন্দোলন চলছে।

সেইসঙ্গে আদালতের নির্দেশে সিবিআই ও ইডি তদন্ত করছে। তার‌ সঙ্গে ২০১৭ এর টেট পাশদের বঞ্চনার অভিযোগ‌ও আছে। কারণ ২০২১ সালে পরীক্ষা হলেও তারা কেউ চাকরি পাননি। এই অবস্থায় আগামী ডিসেম্বর মাসে ফের আরেকটি টেট পরীক্ষা নিতে চলেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। ফলে ২০১৪ ও ২০১৭ এর টেট পালদের নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন দেখা দিয়েছে।

১১ হাজারের বেশি শূন্যপদে প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ 

যদিও এক‌ইসঙ্গে প্রাথমিকের সহ শিক্ষক পদে নতুন নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে পর্ষদ। ১১ হাজারের কিছু বেশি পদে নিয়োগ হবে। আগামী ২১ অক্টোবর থেকে টেট পাশরা এই নিয়োগের জন্য আবেদন জানাতে পারবেন। এই বিষয়ে ঠিক দুর্গাপুজোর আগে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্ষদ বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল।

এই অবস্থায় বর্তমান পর্ষদ সভাপতি গৌতম পাল সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন, “আমি চেষ্টা করব এই বছরের মধ্যেই ২০১৪ ও ২০১৭ এর টেট পাশ সকলকে নিয়োগ দিতে!” অর্থাৎ, যে যোগ্য টেট পাশরা চাকরি পাননি, তাঁদের নিয়োগের আশ্বাস দিলেন পর্ষদ সভাপতি।

তবে গৌতম পালের এই আশ্বাসবানী নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। আরে দুই টেট মিলিয়ে চাকরি পাননি এমন যোগ্যের সংখ্যা অনেক। সেখানে সরকার মাত্র ১১ হাজারের কিছু বেশি শূন্য পদের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। ফলে পর্ষদ সভাপতি কীসের ভিত্তিতে সবাইকে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

পর্ষদ সভাপতির সতর্কবার্তা

প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল ২০১৪ ও ২০১৭ টেট পাশ সকলকে চাকরি দেওয়ার চেষ্টা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পাশাপাশি সতর্কবার্তা‌ও দিয়েছেন। জানিয়েছেন টেট পাশ করা মানেই চাকরি পাবেন, বিষয়টা মোটেও তেমন নয়। টেট পাশ মানে শূন্য শিক্ষক পদে আবেদনের জন্য যোগ্যতা অর্জন করা। এবার নিয়োগ শূন্যপদের সংখ্যা অনুযায়ী হবে বলে তিনি জানান।

এক‌ইসঙ্গে কেন্দ্রের এনসিটিই-র নিয়ম মেনে ৪০ বছরের বেশি বয়সী টেট পাশদের‌ও চাকরি দেওয়া সম্ভব নয় বলেও জানিয়ে দিয়েছেন পর্ষদ সভাপতি।

👍চাকরি ও কাজের আপডেট মিস না করতে চাইলে আমাদের ‘টেলিগ্রাম চ্যানেলে’ যুক্ত হয়ে যান

Join Kajkarmo Telegram.jpeg

🔥 আরো গুরুত্বপুর্ণ আপডেট 👇👇

🎯 অফিস অ্যাটেনডেন্ট সহ বিভিন্ন পদে চাকরির বিজ্ঞপ্তি

🎯 ED-এর জালে ধরা পড়লেন মানিক ভট্টাচার্য, শেষ রক্ষা হল না

🎯 রাজ্যের হাই স্কুলের শিক্ষকদের চাকরির শুরুতে বেতন কত?