বরখাস্ত ২৬৯ প্রাইমারি শিক্ষক পেল লাইনলাইন, এর মানে কি তারা চাকরি ফিরে যাবে?

তাঁদের বিরুদ্ধে যোগ্যদের বঞ্চিত করে বেআইনি পথে চাকরি পাওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে চাকরিও গিয়েছিল এই ২৬৯ জন প্রাথমিক শিক্ষকের। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর ‘লাইফলাইন’ পেলেন এই বরখাস্ত শিক্ষকরা। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় তাঁদেরকেও এবার যুক্ত করার নির্দেশ দিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়।

269 ​​primary dismissed teachers were got a lifeline

বরখাস্ত প্রাথমিক শিক্ষকদের কেন লাইফলাইন?

কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের সিঙ্গেল বেঞ্চ বেআইনিভাবে চাকরিতে বহাল হ‌ওয়ার অভিযোগে রাজ্যের ২৬৯ জন প্রাথমিক শিক্ষককে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। তবে এই রায় দেওয়ার সময় বিচারপতি অভিযুক্ত শিক্ষকদের কোন‌ও বক্তব্য শোনেননি।

হাইকোর্টের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন বরখাস্ত ২৬৯ জন শিক্ষক। শুনানি শেষে গত ১৮ অক্টোবর সুপ্রিম কোর্ট এই শিক্ষকদের বরখাস্ত করার রায়ে অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ জারি করে। জানায যায়, অভিযুক্তদের বক্তব্য না শুনেই রায় দেওয়া হয়েছে। এই ২৬৯ শিক্ষকের বক্তব্য‌ও শুনতে হবে বলে নির্দেশ দেয় সর্বোচ্চ আদালত। এই রায় বরখাস্ত শিক্ষকদের কাছে আপাতভাবে লাইফলাইন হয়ে দেখা দিয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের সেই নির্দেশ মেনেই মঙ্গলবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় ওই ২৬৯ জন প্রাথমিক শিক্ষককে মামলার অংশ করতে নির্দেশ দেন। এর জন্য কাগজপত্র জমা সহ যা যা করার তা প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত সেরে ফেলার নির্দেশ দেন ওই শিক্ষকদের আইনজীবীদের। মঙ্গলবার‌ই পর্ষদ অফিসে গিয়ে বৈঠকে বসেন আইনজীবীরা।

লাইফলাইন মানেই কি চাকরি বেচে যাবে? 

সূত্রের খবর, বরখাস্তের উপর স্থগিতাদেশ পাওয়া ওই ২৬৯ জন প্রাথমিক শিক্ষক মামলার অংশ হয়ে গেলেই নিয়মিত শুনানি শুরু হবে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসেই। আইনজীবী মহলের মতে, যত‌ই দুর্নীতি হোক, ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী অভিযুক্তদের‌ও কথা শোনা প্রয়োজন। এর আগে সেই বিষয়টি হয়নি বলেই সর্বোচ্চ আদালত রায়ে অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ দিয়েছে। তার মানে এই নয় যে ওই ২৬৯ জন শিক্ষকের চাকরি বেঁচে গেল। এই মুহুর্তে‌ই তাঁদের চাকরি যাচ্ছে না, মন্দের ভালো বলতে এইটুকুই।

এদিকে, যে ২৬৯ জন শিক্ষককে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় মামলার অংশ করলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ঘুষ দিয়ে, বেআইনি পথে চাকরি পাওয়ার মারাত্মক সব অভিযোগ আছে। উল্লেখ্য, বেআইনি চাকরির কারণে তাঁরা বঞ্চিত হয়েছেন অভিযোগ তুলে দিনের পর দিন রাস্তায় বসে আন্দোলন করছেন যোগ্য বঞ্চিত টেট পাশরা।

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরির আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন। 

Important Links:  👇👇

কাজকর্ম Whatsapp গ্রুপে জয়েন হোন: Click Here

✅ Telegram Channel: Click Here

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯 প্রাইমারি টেট পরীক্ষায় টুকলি আটকাতে নতুন পদক্ষেপ পর্ষদের

🎯 মাধ্যমিক পরীক্ষায় নতুন নিয়ম- পরীক্ষার্থীরা পাবে অতিরিক্ত সুবিধা

🎯 কয়েকশো শূন্যপদে অস্ত্র কারখানায় গ্রুপ-C পদে চাকরি