৭১ হাজার নিয়োগপত্র তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী, ভোটের মুখে বিশেষ উপহার

1/8: একের পর এক আইটি কোম্পানি যখন কর্মী ছাঁটাই করছে ঠিক তখনই বিপুল সংখ্যক দেশবাসীর হাতে নতুন চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দিতে চলেছে ভারত সরকার। মঙ্গলবার খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) ৭১ হাজার চাকরিপ্রার্থীর হাতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সংস্থার নিয়োগপত্র তুলে দেবেন।

2/8: ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আমলা, আধা সামরিক বাহিনীর জ‌ওয়ান সব ক্ষেত্র মিলিয়েই ৭১ হাজার নিয়োগপত্র বিলি করা হবে। কেন্দ্রের পক্ষ থেকে কার্যত এক মাসের মধ্যে দ্বিতীয়বার বিপুল সংখ্যক চাকরিপ্রার্থীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দিতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

71 thousand appointment letters will be given by the Prime Minister

3/8: কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মঙ্গলবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত কয়েকজন চাকরিপ্রার্থীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেবেন। মঙ্গলবারই রাতের মধ্যে বাকি চাকরিপ্রার্থীদেরকে ই-মেল করে নিয়োগপত্রের সফট কপি পাঠিয়ে দেওয়া হবে। যা তাঁরা ডাউনলোড করে নিয়ে সংশ্লিষ্ট জায়গায় গিয়ে কাজে যোগ দিতে পারবেন।

4/8: উল্লেখ্য যে ৭১ হাজার জনের হাতে প্রধানমন্ত্রী এই নিয়োগপত্র তুলে দিতে চলেছেন তাঁরা সকলেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন দফতরে স্থায়ী চাকরি পেয়েছেন। সর্বভারতীয় স্তরে আয়োজিত প্রতিযোগিতামূলক বিভিন্ন পরীক্ষায় নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করে তবেই চাকরিপ্রার্থীরা এই চাকরি পাচ্ছেন।

5/8: অক্টোবর মাসের শেষের দিকে দিওয়ালির ঠিক আগে ধনতেরাসের দিন একইরকমভাবে বিপুলসংখ্যক চাকরিপ্রার্থীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেদিন বিভিন্ন সরকারি দফতরে চাকরি পাওয়া ৭৫ হাজার জনের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেন তিনি।

6/8: ঐ ঘটনার এক মাসের মধ্যেই আবার নিয়োগপত্র তুলে দিতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। উল্লেখ্য কিছুদিন আগেই কেন্দ্রের পক্ষ থেকে জানানো হয় আগামী দেড় বছরের মধ্যে তারা ১০ লক্ষ বেকার যুবক-যুবতীকে চাকরি দেবে। সেই সিদ্ধান্তের অধীনেই এই নিয়োগপত্র তুলে দেওয়ার কাজ চলছে।

7/8: তবে মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে যারা নিয়োগপত্র পাবে তাঁদের মধ্যে গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশের চাকরীপ্রার্থীরা নেই। গুজরাটে আগামী ১ ও ৫ ডিসেম্বর বিধানসভা নির্বাচন। ফলে সে রাজ্যে আদর্শ নির্বাচনী আচরণবিধি জারি আছে। এদিকে হিমাচল প্রদেশে ভোট হয়ে গেলেও সেখানে ফল প্রকাশ হয়নি। তাই সেখানেও আদর্শ আচরণবিধি জারি আছে।

8/8: আর নির্বাচন কমিশনের আদর্শ আচরণবিধি জারি থাকলে সেই সময় কোনরকম সরকারি চাকরির নিয়োগপত্র দেওয়া চলে না। ফলে এই দুই রাজ্যের চাকরিপ্রার্থীদের বাদ রেখেই এই নিয়োগপত্র দেওয়া হচ্ছে। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশে আদর্শ আচরণবিধির জারি না থাকলে নিয়োগ প্রাপকের সংখ্যা অনেকটাই বাড়ত। তবে গুজরাটে ভোট চলার মাঝে নিয়োগপত্র বিলির ঘটনার সমালোচনা করেছে দেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি।

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরির আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন। 

Important Links:  👇👇
কাজকর্ম WhatsApp গ্রুপে জয়েন হোনClick Here
✅ Telegram ChannelJoin Now

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯 রাজ্যে শুরু হলো ‘তরুণের স্বপ্ন’ প্রকল্প

🎯 টেটের অ্যাডমিট কার্ড নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা পর্ষদের

🎯 রাজ্যের সেচ দপ্তরের চাকরিতে নিয়োগ

🎯 ২০০০ টাকার নোট আর দেখাই যায় না, কিন্তু কেন?