৫০% এর কম নম্বর থাকলেও টেটে বসতে পারবে, এদের জন্য বিশেষ সুযোগ! আর কেউ হাতছাড়া করবে না

1/7: কারা টেট পরীক্ষায় বসতে পারবে তা নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অবস্থান বদলের যেন শেষ নেই। ফর্ম ফিলাপের দিন যত শেষ হয়ে আসছে ততই নতুন নতুন নির্দেশিকা জারি করছে পর্ষদ। বুধবার সন্ধেতেও তারা এক নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে। যার ফলে আরও বেশি সংখ্যক প্রার্থীর সামনে টেট পরীক্ষায় বসার দরজা খুলে গেল।

2/7: দুর্গাপুজো শুরুর মুখে গত ২৯ সেপ্টেম্বর টেট পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। সেখানে বলা হয়েছিল ৫০ শতাংশ নম্বর নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ এবং বিএড বা ডিএল‌এড ডিগ্রি থাকলে তবেই টেট পরীক্ষায় বসা যাবে। গোটাটাই কেন্দ্রীয় সংস্থা NCTE-এর নিয়ম মোতাবেক হচ্ছে বলে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ জানায়।

Even if you have less than 50% marks you can sit in TET

3/7: এরপরই প্রশ্ন ওঠে এনসিটিই (NCTE) ২০১০ সাল পর্যন্ত ৫০ শতাংশের কম নম্বর পেয়ে স্নাতক ও বিএড ডিগ্রি আছে এমন চাকরিপ্রার্থীদের টেটে বসার ছাড়পত্র দিয়েছে। তবে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ কেন সেই নির্দেশিকা মানছে না।

4/7: এই নিয়ে চাকরিপ্রার্থীদের একাংশ কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের‌ও করে। এরপরই বুধবার অর্থাৎ ২ নভেম্বর নতুন নির্দেশিকা জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ জানায়, ২০১০ সাল বা তার আগে ৪৫ শতাংশ নম্বর পেয়ে স্নাতক হওয়া জেনারেল ক্যাটাগরির প্রার্থী এবং ৪০ শতাংশ নম্বর পেয়ে স্নাতক হওয়া সংরক্ষিত শ্রেণির প্রার্থীরাও এবারের স্টেট পরীক্ষায় বসতে পারবে। সেক্ষেত্রে তাদের অবশ্যই ২০১০ সালের আগেই বিএড পাশ করে থাকতে হবে।

5/7: প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের এই নির্দেশিকার ফলে একেবারে শেষ মুহূর্তে টেট পরীক্ষার জন্য আবেদনকারীর সংখ্যা অনেকটাই বাড়বে বলে শিক্ষাবিদের অনুমান। তবে ৪ নভেম্বর ফর্ম ফিলাপের শেষ দিন হওয়ায় এই অল্প সময়ের মধ্যে সকলে আবেদন করে উঠতে পারবেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। এর ফলে পর্ষদ আবেদন করার সময়সীমা অল্প হলেও বাড়াতে পারে এমনও জল্পনা ছড়িয়েছে নেট মাধ্যমে। যদিও এই বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের তরফ থেকে কিছু বলা হয়নি।

6/7: উল্লেখ্য এর আগে আরও একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ফিজিক্যাল এডুকেশন বা শরীর শিক্ষায় ডিগ্রি, ডিপ্লোমা, সার্টিফিকেটধারীদেরও টেট পরীক্ষায় বসার সুযোগ করে দিয়েছিল প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। এক্ষেত্রেও বিতর্ক তৈরি হওয়ার পরই পর্ষদ এই বিশেষ সুযোগ করে দেয়।

7/7: আগামী ১১ ডিসেম্বর রাজ্য জুড়ে টেট পরীক্ষা আয়োজিত হবে বলে ইতিমধ্যেই ঘোষণা করে দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। সেই লক্ষ্যে তারা প্রস্তুতিও চালাচ্ছে। তবে টেট পরীক্ষায় বসার যোগ্যতা মান সংক্রান্ত একটি মামলা এখনও ঝুলে রয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চে। কেন বিএড পাশদের টেটে বসতে দেওয়া হবে এই প্রশ্ন তুলে আদালতের দারস্ত হয়েছেন ডিএল‌এড পাশদের একাংশ। তাদের অভিযোগ, এর ফলে ডিএল‌এড-দের চাকরির সুযোগ অনেকটা কমে যাবে।

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরির আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন। 

Important Links:  👇👇

কাজকর্ম Whatsapp গ্রুপে জয়েন হোন: Click Here

✅ Telegram Channel: Click Here

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇 

🎯 রাজ্যের ওপেন ইউনিভার্সিটিতে ফ্যাকাল্টি নিয়োগ

🎯 টেট পাশ অথচ 40 বছর বয়স তাদের জন্য সুখবর

🎯 উচ্চমাধ্যমিকের প্রশ্ন নিয়ে চরম বিভ্রান্তি