১৫ বছর পর রাজ্যের সেচ দফতরে চাকরি, হাইকোর্টের নির্দেশে ৮ সপ্তাহের মধ্যে নিয়োগ!

1/8: আজ থেকে ঠিক ১৫ বছর আগে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি বেরিয়েছিল। ১২ বছর আগে নিয়োগের প্যানেল‌ও প্রকাশিত হয়। কিন্তু আইনি জটিলতায় সবকিছু ধামাচাপা পড়ে যায়। তবে শেষ পর্যন্ত কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে দীর্ঘ ১৫ বছর আগের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী নিয়োগ হতে চলেছে রাজ্য সেচ দফতরে। 

2/8: ১৫ বছর মানে দেড় যুগ। এই সময়কাল অনেক কিছু বদলে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। একসময় যারা তরুণ টগবগে চাকরিপ্রার্থী ছিল তাদেরই অনেকে আজ হয়ত মধ্যবয়স্ক, সংসারের বোঝা মাথায় নিয়ে দিশেহারা। যদিও ১৫ বছর আগে চাকরিটা হয়ে গেলে আজ হয়ত এই পরিস্থিতিতে পড়তে হত না তাঁদের। তবু যার শেষ ভাল তার সব ভাল।

Job in WB Irrigation Department after 15 years

3/8: ২০০৭ সালে রাজ্য সেচ দফতর ১ হাজার ৪০৬ জনের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে। যদিও এই নিয়োগের বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমে কোন‌ও বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়নি। যা নিয়ে গোড়া থেকেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। এরপর ২০১০ সালের ২৪ জুলাই ময়ূরাক্ষী ক্যানেল সার্কেলে নিয়োগের জন্য ৮৪ জনের প্রথম তালিকা প্রকাশ করে সেচ দফতর।

4/8: কিন্তু কয়েকদিনের মধ্যেই সেই তালিকা সম্পূর্ণ বদলে ফেলা হয়। ওই বছরেরই ১২ অগস্ট নতুন ৮৪ জনের দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ করা হয়। প্রথম তালিকায় নাম থাকা ৮৪ জনকে বাদ দিয়ে দ্বিতীয় তালিকাকে এই চূড়ান্ত বলে জানায় সেচ দফতর।

5/8: সেচ দফতরের এই সিদ্ধান্তে বিতর্ক তুঙ্গে ওঠে। প্রথম তালিকা থেকে বাদ পড়া চাকরিপ্রার্থীরা কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন। আদালত নিয়োগ প্রক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশ জারি করে। পাল্টা দ্বিতীয় তালিকায় নাম থাকা চাকরিপ্রার্থীরা কলকাতা হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যান।

আরো আপডেট: ফরেস্ট বিভাগে গ্রুপ-সি এবং গ্রুপ-ডি পদে নিয়োগ

6/8: এই মাঝের সময়টা জুড়ে সে দফতরের এই নিয়োগ নিয়ে মামলা চলেছে সুপ্রিম কোর্টে। সর্বোচ্চ আদালত জানায়, সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি না দিলেও এই চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ৫৭ হাজার জন চাকরিপ্রার্থী অংশগ্রহণ করেছিলেন। তাই নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি বৈধ। তবে সুপ্রিম কোর্ট নিয়োগের তালিকা নিয়ে নিষ্পত্তির জন্য বিষয়টি ট্রাইবুনালে পাঠায়। সেখান থেকে মামলা ঘুরে ফের কলকাতা হাইকোর্টে আসে।

7/8: কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন সেচ দফতরের প্রথম তালিকা বাতিল করে দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশের যুক্তি মানতে চাননি। সেচ দফতরের পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রযুক্তিগত বিভ্রাটের কারণে প্রথম তালিকায় ভুল করে ৮৪ জনের নাম প্রকাশিত হয়েছিল, কিন্তু তারা যোগ্য নয়।

8/8: এই নিয়ে চাকরিপ্রার্থী এবং সেচ দফতর দু’পক্ষের দীর্ঘ স‌ওয়াল জবাবের পর সোমবার কলকাতা হাইকোর্ট রায় দেয়- আগামী ৮ (আট) সপ্তাহের মধ্যে প্রথম তালিকায় নাম থাকা ৮৪ জনকে চাকরি দিতে হবে সেচ দফতরকে। বাকি পদগুলিও ধাপে ধাপে পূরণ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরি ও কাজের আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন।  

Important Links:  👇👇
কাজকর্ম WhatsApp গ্রুপে জয়েন হোনClick Here
✅ Telegram ChannelJoin Now

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯  পশ্চিমবঙ্গের পৌরসভায় কর্মচারী নিয়োগ 

🎯  আধার থাকলেই মাসে ৩০০০ টাকা! কীভাবে পাবেন?

🎯  ভারতীয় সেন্ট্রাল রেলে 2422 টি শূন্যপদে নিয়োগ