নাম ছিল ১৮৩ জন অযোগ্য শিক্ষকের তালিকায়, এই কারনেই কি আত্মঘাতী হলেন টুম্পা

  1. 1/7: সম্প্রতি কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে স্কুল সার্ভিস কমিশন বা এসএসসি যে ১৮৩ জন অযোগ্য শিক্ষকের তালিকা ঘোষণা করেছে সেখানে তাঁর নাম ছিল ২৬ নম্বরে। এই তালিকা প্রকাশের পর থেকেই নাকি অবসাদে ভুগছিলেন টুম্পারানি মণ্ডল (Tumparani Mondal)। তিনি পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামের দেবীপুর মিলন বিদ্যপীঠের বাংলার শিক্ষিকা। রবিবার রাতে ওই শিক্ষিকার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। এরপরই পরিবার অভিযোগ করে, এসএসসির অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকায় নাম থাকায় অবসাদে আত্মঘাতী হয়েছেন ওই শিক্ষিকা।

2/7: সূত্রের খবর, বছর চারেক ধরে শিক্ষিকার চাকরি করছেন টুম্পারানি মণ্ডল। নন্দীগ্রামের স্কুলে চাকরি করলেও তাঁর বাড়ি পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডিপুরে। জানা গিয়েছে, এসএসসির অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকায় তাঁর নাম আছে এই বিষয়টি স্কুলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকে জানতে পারেন ওই শিক্ষিকা। তারপর থেকেই নাকি তিনি অবসাদে চলে যান।

The name was in the list of 183 ineligible teachers

3/7: পরিজনদের বলতে শুরু করেন, আমার আর মান-সম্মান বলে কিছু রইল না। ছাত্রছাত্রী, সহ শিক্ষকদের কাছে মুখ দেখাতে পারব না। সেইসঙ্গে চাকরি চলে যাওয়া এবং গত চার বছরের বেতন ফেরত দিতে হবে এই আশঙ্কাও পেয়ে বসে তাঁকে। পরিজনরা অনেক বুঝিয়েছিলেন। কিন্তু রবিবার বিকেলে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে ওই শিক্ষিকা আত্মঘাতী হন বলে পরিবারের দাবি।

4/7: যদিও বিষয়টির সঙ্গে পারিবারিক বিবাদ জড়িত আছে কিনা তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। মৃত টুম্পারানি মণ্ডলের স্বামী ও দিদির দাবি, তিনি সৎ পথেই স্কুল শিক্ষিকার চাকরি পেয়েছিলেন। তাতে কোনরকম দুর্নীতি ছিল না‌। তাই অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকায় নিজের নাম দেখে সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছিলেন টুম্পারানি। তাঁরা ঘুরিয়ে এসএসসির দিকে অভিযোগের আঙুল তোলেন।

5/7: এদিকে মৃত শিক্ষিকার স্বামী ও দিদি যখন সৎ পথে চাকরি পাওয়ার কথা বলছেন, তখন তাঁদেরই এক আত্মীয় নাম না প্রকাশ করার শর্তে সম্পূর্ণ অন্য কথা শুনিয়েছেন। তাঁর দাবি, চাকরি পাওয়ার জন্য একটু উল্টো পথ ধরতে হয়েছিল টুম্পারানি মণ্ডলকে। পারিবারিক জমি বিক্রি করে ১৬ লাখ টাকা তুলে দিতে হয়েছিল এলাকার এক প্রভাবশালী তৃণমূল নেতার হাতে!

6/7: যদিও টুম্পারানি মণ্ডল আদৌ আত্মহত্যা করেছেন কিনা এবং তিনি আত্মঘাতী হয়ে থাকলেও তার পিছনে আসল কারণ কী, পুরোটাই তদন্ত সাপেক্ষ। তবে এসএসসির প্রকাশিত অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকায় নাম থাকা একজনের অকাল মৃত্যুর ফলে বিষয়টি নিয়ে যথারীতি জলঘোলা হচ্ছে।

7/7: এই বিষয়টি ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়াতেও সাড়া ফেলেছে। সেখানে অবশ্য বেশিরভাগই টুম্পারানি মণ্ডলের মৃত্যুতের শোক প্রকাশ করেও তাঁর আত্মঘাতী হওয়ার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারছেন না। নেটিজেনদের সাফ কথা, অন্যায়ভাবে চাকরি পেয়ে থাকলে তা একসময় ফাঁস হবেই। শাস্তিও পেতে হবে। বরং এই চরম সিদ্ধান্ত না নিয়ে টুম্পারানি মণ্ডলের উচিৎ ছিল, কাদের জন্য তাঁর নাম অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকায় উঠেছে সেটা সর্বসমক্ষে ফাঁস করে দেওয়া!

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরির আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন। 

Important Links:  👇👇
কাজকর্ম WhatsApp গ্রুপে জয়েন হোনClick Here
✅ Telegram ChannelJoin Now

🔥 আরো চাকরির আপডেট- Click Here