Fake Appointment Letter: রাজ্যে ভুয়ো সরকারি নিয়োগপত্রের পর্দা ফাঁস! চাকরিপ্রার্থীদের মাথাই হাত, বড় কেলেঙ্কারিতে জড়াল রাজ্য

ভারতবর্ষে এখনও সবচেয়ে নিরাপদ ও ভরসাযোগ্য কর্মক্ষেত্র মনে করা হয় সরকারি জায়গাগুলোকে। সেখানে চাকরি পাওয়া মানে জীবন দাঁড়িয়ে গেল, এমনটাই মনে করেন বেশিরভাগ মানুষ। কিন্তু সেই ধারণা ভেঙে খোদ সরকার কিনা চাকরির ভুয়ো নিয়োগপত্র (Fake Appointment Letter) দিল হাজার হাজার ছেলেমেয়েকে!

এসএসসি ও প্রাথমিক শিক্ষক পদে নিয়োগ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে এমনিতেই জেরবার পশ্চিমবঙ্গ সরকার। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে এবার সরাসরি চাকরি দেওয়ার নামে জালিয়াতি করার অভিযোগ উঠল। গোটা ঘটনায় রাজ্য প্রশাসন কার্যত মুখে কুলুপ এঁটেছে।

utkarsh-bangla-fake-appointment-letter

ভুয়ো নিয়োগপত্রের ঘটনাটা কী?

সম্প্রতি কলকাতার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে কারিগরি শিক্ষা দফতরের ‘উৎকর্ষ বাংলা’ (Utkarsh Bangla) প্রকল্পের অধীনে প্রশিক্ষিতদের নিয়ে একটি অনুষ্ঠান করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর দু’দিন পর অনুরূপ এক‌ই অনুষ্ঠান করেন খড়্গপুরে।

নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের অনুষ্ঠানে প্রায় ১১ হাজার প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ছেলে-মেয়ের হাতে নতুন চাকরির নিয়োগপত্র তুলে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল। যদিও সেদিন মুখ্যমন্ত্রীর হাত দিয়ে নিয়োগপত্র তুলে দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চ থেকেই জানান, সরকারি উদ্যোগে উৎকর্ষ বাংলায় প্রশিক্ষণ নেওয়া ৩০ হাজার ছেলে-মেয়ে নতুন চাকরি পাচ্ছে।

এর পরের দিন কারোর বাড়িতে, আবার কেউ জেলার আইটিআই কলেজে গিয়ে নিয়োগপত্র নেন। আর তাতেই ভুয়ো নিয়োগপত্রের পর্দা ফাঁস হয় বলে অভিযোগ।

এই যেমন, হুগলি জেলার ছেলে-মেয়েরা হুগলি ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজিতে এসে সাদা কাগজের একটি নিয়োগপত্র পান। কিন্তু দেখা যায় তাতে লেখা আছে ১৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে গুজরাটের মারুতি কারখানায় যোগ দিতে হবে। যদিও এটা চাকরি নয়, মোটর মেকানিক ট্রেনি পদে যোগ দেওয়ার কথা লেখা ছিল। যা মুখ্যমন্ত্রীর বলা কথার সঙ্গে মেলেনি। সঙ্গে Stipend বা ভাতা হিসেবে মাসে ১১ হাজার টাকা দেওয়ার কথা বলা হয়।

এদিকে দিন পেরিয়ে যাওয়ায় ওই নিয়োগপত্রে উল্লেখ করা ফানফাস্ট সংস্থার ভেদপ্রকাশ সিংকে ফোন করেন অনেক অভিভাবক। এই ভেদপ্রকাশ‌ই ট্রেনিং প্রোগ্রামের সেন্টার ম্যানেজার বলে উল্লেখ করা ছিল।

কিন্তু ফানফাস্টের তরফ থেকে অভিভাবকদের জানিয়ে দেওয়া হয়, তারা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সাহায্যে কাউকে ট্রেনি হিসেবে নির্বাচন করেনি। এমনকি তাঁদের অফার‌ লেটার হলুদ কাগজে দেওয়া হয় বলে ভেদপ্রকাশ সিং জানান। গোটা ঘটনায় ফানফাস্টের লোগো ও নাম জালিয়াতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন সংস্থার কর্তা ভেদপ্রকাশ।

এই নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে ওই বেসরকারি সংস্থা চিঠি দিয়েছে বলে খবর। কীভাবে তাদের লেটার হেড জাল হল তা নিয়ে রীতিমতো উষ্মা প্রকাশ করেছে তারা। এই ঘটনায় চাকরির ভুয়ো নিয়োগপত্র পাওয়া যুবক-যুবতীরা ব্যাপক ক্ষুব্ধ। এদিকে গাফিলতি ও ভুল বুঝতে পেরে মুখ খুলছেন না সরকারি আধিকারিকরা। শুধু খড়্গপুরের সভায় মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই বিষয়ে কোনও সমস্যা থাকলে তা দেখার জন্য একটি গ্রিভ্যান্স সেল খোলার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

কিন্তু এই ভুয়ো নিয়োগপত্র দেওয়ার ঘটনায় রাজ্য সরকারের পাশাপাশি খোদ মুখ্যমন্ত্রী জড়িয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ তুলেছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। যা নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

👍 চাকরি ও কাজের আপডেট মিস না করতে চাইলে আমাদের ‘টেলিগ্রাম চ্যানেলে’ যুক্ত হয়ে যান

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯 TET পরীক্ষার নোটিফিকেশন করে বেরোবে- জানালেন পর্ষদ সভাপতি

🎯 দুয়ারে সরকার ক্যাম্পেই করা যাবে চাকরির আবেদন!

🎯 রাজ্যের উপজাতী উন্নয়ন দপ্তরে গ্রুপ-D নিয়োগ