টেট পরীক্ষা ২০২২ এর গাইডলাইন জারি হলো, এই সমস্ত নিয়ম না মানলে পরীক্ষা বাতিল!

২০১৪ ও ২০১৭ এর টেট পাশ আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভ-প্রতিবাদের মধ্যেই এবারের টেট পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। আগামী ১১ ডিসেম্বর ২০২২ এর টেট পরীক্ষা হবে। সেই নিয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ের গাইডলাইন (TET Guideline 2022) প্রকাশ করেছে পর্ষদ।

সেখানে আবেদন করার প্রক্রিয়া, পরীক্ষার সময়সূচি, পরীক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে কী ধরনের আচরণ করা যাবে তা নিয়ে বিস্তারিত নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। এর পাশাপাশি প্রশ্নপত্রের নম্বর বিভাজন সহ মডেল প্রশ্নপত্র‌ও প্রকাশ করেছে তারা। সেই সঙ্গে পরীক্ষার পাস মার্কস নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে। 

WB Primary TET Exam 2022 Official Guideline

WB Primary TET 2022 Official Guideline Publishedটেট পরীক্ষার গাইডলাইন ও সময়সূচী (TET Exam 2022 Guidelines and Schedule)

১১ ডিসেম্বর (রবিবার) টেট পরীক্ষা হবে, এটা সকলেই জানেন। সেই সঙ্গে এই পরীক্ষায় বসার জন্য আবেদন জানানোর প্রক্রিয়া ৩ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এটাও জানতে কারো বাকি নেই। তবে ঐদিন কটা পর্যন্ত ফর্ম ফিলাপ করা যাবে তা অনেকের কাছে স্পষ্ট ছিল না। প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের জারি করা গাইডলাইনে জানানো হয়েছে ৩ নভেম্বর রাত ১২ টা পর্যন্ত টেট পরীক্ষায় বসার জন্য প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন

🎯 টেটে ১৫০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। এর জন্য পরীক্ষার্থীরা আড়াই ঘন্টা (2 ঘন্টা 30 মিনিট) সময় পাবেন।

⏰ ১১ ডিসেম্বর পরীক্ষা শুরু হবে দুপুর ১২ টায়, চলবে ২.৩০ পর্যন্ত

🔴 পরীক্ষা শুরুর দু’ঘণ্টা আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে রিপোর্টিং করার নির্দেশ দিয়েছে পর্ষদ। অর্থাৎ প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে নিজ নিজ পরীক্ষা কেন্দ্রে সকাল ১০ টার মধ্যে পৌঁছে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে

🚫 সেইসঙ্গে পর্ষদ জানিয়েছে, পরীক্ষা শুরু হয়ে গেলে যতই যুক্তিপূর্ণ কারণ থাকুক না কেন দেরিতে পৌঁছানো কোন‌ও পরীক্ষার্থীকে আর পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

🚫 কোন‌ও পরীক্ষার্থীর তাড়াতাড়ি উত্তর লেখা হয়ে গেলেও তিনি দুপুর আড়াইটের আগে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বেরোতে পারবেন না বলে পর্ষদ জানিয়ে দিয়েছে।

✅ একমাত্র সেই পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা ইনভিজিলেটর বিশেষ অনুমতি দিলে তবেই কেউ নির্ধারিত সময়ের আগে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বের হতে পারবেন।

🔴 ওই গাইডলাইনে পর্ষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে অবশ্যই বৈধ অ্যাডমিট কার্ড নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছাতে হবে। এই অ্যাডমিট কার্ড পর্ষদের ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিতে হবে। কেউ অ্যাডমিট কার্ডের ফটোকপি বা অ্যাডমিট কার্ড ছাড়া পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছলে তাঁকে পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হবে না।

🔴 রোল নম্বর অনুযায়ী পরীক্ষার্থীদের জন্য সিট বরাদ্দ করা থাকবে। সেখানেই পরীক্ষার্থীকে বসে পরীক্ষা দিতে হবে। কোন‌ও পরীক্ষার্থী যদি তার বরাদ্দ সিটের বদলে অন্য কোন‌ও জায়গায় বসে পরীক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করেন বা পরীক্ষা চলাকালীন সেখান থেকে উঠে যান, তবে তাঁর গোটা পরীক্ষা বাতিল করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

টেট পরীক্ষা কেন্দ্রে কী কী নিয়ে প্রবেশ নিষিদ্ধ? 

টেট পরীক্ষার্থীরা কী কী নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন না তা নিয়ে একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

(1) সেই নির্দেশিকা অনুযায়ী খাতা রেখে লেখার জন্য বোর্ড, এমনকি ইরেজার বা রবার পর্যন্ত সঙ্গে রাখা চলবে না। পেন্সিল বক্স, জ্যামিতি বক্স, ক্যালকুলেটর, ডিজিটাল ক্যালকুলেটর, স্কেল ইত্যাদি নিয়েও পরীক্ষায় বসতে পারবেন না পরীক্ষার্থীরা।

(2) ডিজিটাল রিস্টওয়াচ তো বটেই, এমনকি চিরাচরিত হাত ঘড়ি পড়েও কোনও পরীক্ষার্থী টেট পরীক্ষায় বসতে পারবেন না।

(3) সেই সঙ্গে পর্ষদ জানিয়েছে আংটি, গলার হার সহ কোনরকম গয়নাগাটি পরেও পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশ করা চলবে না।

(4) এমনকি পরীক্ষার্থীদের তাদের ওয়ালেট পরীক্ষা কেন্দ্রের বাইরে রেখে পরীক্ষায় বসতে হবে বলেও পর্ষদের নির্দেশিকায় স্পষ্ট করা হয়েছে।

(5) কোনরকম ডিজিটাল ডিভাইস, মোবাইল ব্লুটুথ ইত্যাদি পরীক্ষার্থীদের কাছে পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে তার পরীক্ষা বাতিল করে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

(6) চা, কফি এমনকি স্ন্যাক্স বা কোনরকম বিস্কুট-লজেন্স নিয়েও পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না বলে নির্দেশ দিয়েছে পর্ষদ।

(7) পরীক্ষা কেন্দ্রে ধূমপান, গুটখার পিক ফেলা ইত্যাদি কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

প্রশ্নপত্রের নম্বর বিভাজন এবং পাশ নম্বর

  • মোট ১৫০ নম্বরের পরীক্ষা হবে টেটে। প্রতিটি প্রশ্নে বরাদ্দ থাকবে ১ নম্বর।
  • প্রশ্ন হবে MCQ ধাঁচে।
  • জেনারেল পরীক্ষার্থীরা ৬০ শতাংশ অর্থাৎ ৯০ নম্বর পেলে তবেই পাশ করবে।
  • তবে ওবিসি, এসসি, এসটি’রা ৫৫ শতাংশ বা ৮২.৫ নম্বর পেলেই টেটে উত্তীর্ণ বলে বিবেচিত হবেন।

টেট সার্টিফিকেটের বৈধতার সময়সীমা

টেট পরীক্ষায় পাশ করলে সেই সার্টিফিকেট আজীবন বৈধ থাকবে। তবে প্রতিবছর প্রাপ্ত নম্বর বাড়ানোর জন্য পরীক্ষার্থীরা চাইলে টেট পরীক্ষায় বসতে পারবেন বলেও জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

১৫০ নম্বর প্রশ্নের বিষয়ভিত্তিক নম্বর বিভাজন

(1) শিশুবিকাশ ও শিশুশিক্ষা- ৩০
(2) প্রথম ভাষা (বাংলা/হিন্দি/ওড়িয়া/তেলেগু/নেপালি/সাঁওতালি/উর্দু)- ৩০
(3) দ্বিতীয় ভাষা (ইংরেজি)-৩০
(4) অঙ্ক- ৩০
(5) পরিবেশবিদ্যা- ৩০

প্রথম ভাষা, দ্বিতীয় ভাষা, অঙ্ক ও পরিবেশবিদ্যার অর্ধেক প্রশ্ন, অর্থাৎ ১৫ নম্বরের প্রশ্ন শিশুবিকাশ সংক্রান্ত করতে হবে বলেও পর্ষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। এই নিয়ে মডেল প্রশ্নপত্র প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ জানিয়েছে ফর্ম ফিলাপে বিভ্রাট থাকলেও কোনও পরীক্ষার্থী অনলাইনে একবার টাকা জমা দিয়ে দিলে তা আর ফিরত পাওয়া যাবে না। একমাত্র পরীক্ষা বাতিল হলে তবেই সেই টাকা ফেরত দেবে পর্ষদ।

রাজ্য সরকারের, কেন্দ্র সরকারের, ব্যাঙ্কের চাকরি, বিভিন্ন কোম্পানীর চাকরি এবং সেইসাথে চাকরি পরীক্ষা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ন আপডেট, চাকরি পরীক্ষার সিলেবাস ইত্যাদি বিষয়ে নিজেকে আপডেট রাখতে চাইলে আমাদের কাজকর্ম (kajkarmo) ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন। সেইসাথে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেল এবং WhatsApp গ্রুপে যুক্ত হয়ে থাকুন।

Important Links: 👇👇👇👇
কাজকর্ম WhatsApp গ্রুপJoin Now
✅ Telegram চ্যানেলJoin Now
✅ টেট পরীক্ষার গাইডলাইন PDFDownload
টেট পরীক্ষার নতুন সিলেবাস PDFDownload