WB Job Scam: রাজ্যে কোন চাকরির জন্য কত টাকা দিতে হয়েছে? দেখে নিন Rate লিস্ট

চৈত্রের সেলে ঠিক যেমনভাবে জামাকাপড়, বালিশের ওয়ার, বেডশিট বিক্রি হয়, তেমন ভাবেই বিক্রি হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন সরকারি স্কুলের শিক্ষক পদের চাকরি। যত উঁচু শ্রেণির শিক্ষক, তার দর তত বেশি। ৮ লক্ষ থেকে ২০ লক্ষ টাকার মধ্যে ঘোরাফেরা করেছে এই দর। তবে ধৃত প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠদের এই বিপুল টাকার চাহিদা মিটিয়েও অনেকে চাকরি পাননি বলে অভিযোগ।

রাজ্যে প্রাইমারি থেকে শুরু করে সরকারি অন্যান্য বিভাগের শিক্ষকের চাকরির জন্য চাকরিপ্রার্থীরা মোটা টাকার ঘুষ দিয়েছে। অনেকে লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে চাকরি পেয়ে এখন মাসে মাসে টাকা ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পেয়ে যাচ্ছেন। অনেকে টাকা দিয়েও চাকরি পাননি। তারা টাকার শোকে দিনযাপন করছে। 

রাজ্যে কোন চাকরির কত দাম?

বিভিন্ন চাকরির বিভিন্ন দর

এরাজ্যে প্রাথমিক শিক্ষক থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শিক্ষক নিয়োগ, এমনকি হাইস্কুলের অশিক্ষক কর্মচারী নিয়োগেও ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে এই নিয়োগ দুর্নীতির তদন্ত করছে সিবিআই।

কয়েকটি ক্ষেত্রে দুর্নীতি বা অনিয়মের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের প্রমাণ ইতিমধ্যেই পাওয়া গিয়েছে। এই নিয়ে সদ্য কলকাতা হাইকোর্টে চার্জশিট জমা পড়েছে। তা থেকেই জানা গিয়েছে শিক্ষক পদে চাকরির দর কত দূর উঠেছিল।

ইডি সূত্রে দাবি, প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরির জন্য পার্থ ঘনিষ্ঠ শিক্ষা কর্তা ও এজেন্টদের ৭ থেকে ৮ লক্ষ টাকা দিতে হতো। আবার উচ্চ প্রাথমিক স্তরের শিক্ষকদের জন্য দর ছিল ১০ লক্ষ থেকে ১২ লক্ষ টাকা। মাধ্যমিক স্তর অর্থাৎ নবম-দশমের শিক্ষক পদের জন্য ১৬ থেকে ১৮ লক্ষ টাকা খসাতে হয়েছে চাকরিপ্রার্থীদের।

অপরদিকে উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শিক্ষক পদের অঙ্ক প্রায় ২০ লক্ষ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে! হাইস্কুলের অশিক্ষক কর্মী পদের জন্যও মোটা অঙ্কের ঘুষ দিতে হয়েছে বলে অভিযোগ। এই পদের দর ছিল ১৪-১৫ লক্ষ টাকা।

রাজ্যের শিক্ষক এবং অশিক্ষক কর্মী পদে দুর্নীতির এমন ভয়াবহ ছবি উঠে এসেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটর (ED) তদন্তে। সেই সঙ্গে ইডি বেশ কিছুজনের নাম উল্লেখ করে জানিয়েছে, তারা শেষ সঞ্চয় খরচ করে চাকরির আশায় রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষা কর্তাদের হাতে মোটা টাকা তুলে দিলেও শেষ পর্যন্ত চাকরি পাননি।

ইডির দাবি, রাজ্যের বহু শিক্ষকের পদ যেমন টাকার বিনিময়ে বিক্রি হয়েছে, তেমনই টাকা নিয়েও চাকরি না দেওয়ার সংখ্যাও কম নয়। পার্থ ঘনিষ্ঠ প্রাক্তন শিক্ষা কর্তারা সবরকমভাবে চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন বলে ভয়ঙ্কর অভিযোগ এনেছে ইডি।

👍চাকরি ও কাজের আপডেট মিস না করতে চাইলে আমাদের ‘টেলিগ্রাম চ্যানেলে’ যুক্ত হয়ে যান

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯 ৭ বছরের লড়াই শেষে প্রাইমারি চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর

🎯 তৃণমূল জামানার ৫৯ হাজার প্রাইমারি শিক্ষকের মেরিট লিস্ট চাইল আদালত

🎯 স্টেট ব্যাংকে 1673 শূন্যপদে কর্মী নিয়োগ