নোট বাতিলের এই সমস্ত লাভ হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টে দাবি করল কেন্দ্র

1/6: ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর দিনটা ভারতবাসী বোধহয় কোনদিনই ভুলবে না। ঐদিন রাত আটটা নাগাদ হঠাৎই জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) জানান, বাজারে চালু সব ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল করছে সরকার। এই সিদ্ধান্ত সেই দিন থেকেই বলবত হয়ে যায়।

2/6: এরফলে গোটা দেশবাসিকে কয়েক সপ্তাহ ধরে ব্যাঙ্ক ও এটিএম-এর সামনে লাইন দিতে দেখা যায়। সে এক অন্যরকম দৃশ্য ছিল। এমন ঘটনা তার আগে কেউ দেখেনি, পরের ৬ বছরেও আর দেখা যায়নি। এরপর থেকেই যেন ভারতীয় অর্থনীতি তার স্থিতাবস্থা হারিয়ে টালমাটাল করতে শুরু করেছে। যদিও কেন্দ্রের মোদী সরকারের দাবি, রাতারাতি নোটবন্দির ফলে দেশের নাকি বিরাট লাভ হয়েছে!

All these benefits of demonetisation

3/6: রাতারাতি নোটবন্দির বা নোট বাতিল (Demonetisation) এর এই সিদ্ধান্তের পক্ষ-বিপক্ষ দু’রকমই মত আছে। তবে এই ঘটনার ফলে মানুষ যে ব্যাপক হয়রানির সম্মুখীন হয়েছিল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বহু মানুষ আতঙ্কে, কেউ কেউ আবার টাকা তোলার লাইনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার ফলে অসুস্থ হয়ে সেই সময় মারা যান। দেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি এই মৃত্যুর জন্য সরকারের নোটবন্দির সিদ্ধান্তকেই কাটগড়ায় তোলে।

4/6: তবে নোটবন্দির ধাক্কায় দেশের ছোট ছোট ব্যবসায়ী ও কলকারখানাগুলি প্রায় উঠে যায়। অন্তত ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বরের আগে ও তার পরের সরকারি রিপোর্ট থেকেই সেই বিষয়টি স্পষ্ট। এদিকে নোটবন্দির পর বাজারে আসে গোলাপি রঙের নতুন ২০০০ টাকার নোট। যা নিয়ে প্রচুর আলোচনা হয়েছে। তবে সম্প্রতি জানা যায় শেষ তিন বছর ধরে আর ২০০০ টাকার নোট ছাপাচ্ছে না রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (RBI)। তবে ধূসর বর্ণের নতুন ৫০০ টাকার যে নোট বাজারে এসেছিল সেটা দিব্যি চলছে।

5/6: এদিকে, নোটবন্দির যে শুধু সমালোচনাই করা হয় তা কিন্তু নয়। দেশের জাতীয়তাবাদী জনগণের একটা বড় অংশ সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছে। তাদের মতে, এর ফলে ভারতের নিজস্ব অর্থনৈতিক কাঠামো অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে। সবমিলিয়ে দেখা যাচ্ছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির প্রচুর সমালোচনা, দেশের কৃতি অর্থনীতিবিদদের তীক্ষ্ণ নেতিবাচক বিশ্লেষণ সত্বেও ৬ বছর পরেও সরকার মনে করছে নোটবন্দির সিদ্ধান্ত সঠিক

6/6: কেন্দ্রীয় সরকারের নোটবন্দির সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে দেশের বিভিন্ন আদালতে অনেক মামলা দায়ের হয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই সেই সমস্ত মামলাকে একত্র করে সর্বোচ্চ আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। সম্প্রতি তার শুনানি শুরু হয়েছে। নোটবন্দি সংক্রান্ত সেই মামলার শুনানিতেই বুধবার হলফনামা জমা দিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ছয় বছর আগের সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ সঠিক ছিল।

নোট বাতিলের হলফনামায় ঠিক যা দাবি করেছে কেন্দ্র

নোটবন্দির কারণ হিসেবে সেই সময় কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে যে বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছিল, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ আদালতে জমা দেওয়া হলফনামাতেও কার্যত সেগুলোর পুনরাবৃত্তি করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে-

• নোটবন্দির ফলে বাজারে জাল নোটের পরিমাণ অনেকটাই কমে গিয়েছে। অর্থাৎ ভারতীয় অর্থনীতি অনেকটাই ‘শুদ্ধ’ হয়েছে।

• নোটবন্দির কারণে দেশে ডিজিটাল লেনদেন এক ধাক্কায় বহুগুণ বেড়ে গিয়েছে বলে সরকারের দাবি। এর ফলে ভারতীয় অর্থনীতি ক্রমশ ক্যাশলেস হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করছে কেন্দ্রীয় সরকার।

কালো টাকার লেনদেন অনেক কমে গিয়েছে। পরিসংখ্যান তুলে ধরে কেন্দ্র দাবি করেছে, নোটবন্দির পর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বৈধ লেনদেনের পরিমাণ বহুগুণ বেড়েছে।

• নোটবন্দির কারণে আয়কর জমার পরিমাণও অনেকটা বেড়েছে বলে কেন্দ্রীয় সরকারের দাবি। যুক্তি হিসেবে বলা হয়েছে, ভুয়ো ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আয়করদাতারাও আর কর না এড়িয়ে সঠিক পথে হাঁটতে শুরু করেছেন। তার ফলে আয়কর বাবদ সরকারের আয় বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

যদিও কেন্দ্রের হলফনামায় দাবি করা কয়েকটি বিষয় নিয়ে আগেই প্রশ্ন উঠেছিল। পরিসংখ্যান দেখাচ্ছে, নোটবন্দি সত্বেও প্রায় পুরো টাকাটাই অর্থ ব্যবস্থায় ফিরে এসেছে। অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সরকার তাদের হলফনামায় কালো টাকা বিনাশের যে দাবিই করুক না কেন তা কতটা সঠিক সেই বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে।

তাছাড়া নতুন চালু ২০০০ ও ৫০০ টাকার নোট নকল করা যাবে না বলে সেই সময় কেন্দ্রীয় সরকার দাবি করেছিল। কিন্তু রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তথ্যই বলছে, বাজার নকল ২০০০ টাকার নোটে ছেয়ে গিয়েছে। এমনকি ৫০০ টাকার নোটও ভালোমতোই জাল হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের দেওয়া হলফনামা নোটবন্দি সংক্রান্ত বিতর্ককে আবার‌ও উস্কে দিল।

বিঃদ্র: নতুন কোনো চাকরির আপডেট মিস করতে না চাইলে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ এবং টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হয়ে যান। নিচে যুক্ত (Join) হওয়ার লিংক দেওয়া রয়েছে ঐ লিংকে ক্লিক করলেই যুক্ত হয়ে যেতে পারবেন। ওখানেই সর্বপ্রথম আপডেট দেওয়া হয়। আর আপনি যদি অলরেডি যুক্ত হয়ে থাকেন এটি প্লিজ Ignore করুন। 

Important Links:  👇👇
কাজকর্ম WhatsApp গ্রুপে জয়েন হোনClick Here
✅ Telegram ChannelJoin Now

🔥 আরো চাকরির আপডেট 👇👇

🎯 HS এর সকলেই ১০ হাজার টাকা পাবে

🎯 রাজ্যের সেচ দপ্তরের চাকরিতে নিয়োগ

🎯 রাজ্যে সুপারভাইজার সহ বিভিন্ন কর্মী নিয়োগ

🎯 SSC কত ভুয়ো নিয়োগ করেছে?